শেয়ার বাজার মিউচুয়াল ফান্ড পোস্ট অফিস স্কিম ব্যাঙ্ক স্কিম ক্রেডিট কার্ড ডিমেট অ্যাকাউন্ট ইন্সুরেন্স সমস্ত FD ক্যালকুলেটর

Share Market: শেয়ার মার্কেটে বিনিয়োগের এই ৭টি নিয়ম মেনে চললেই মালামাল! জেনে থাকা আবশ্যক

Photo of author

By Joydeep

গ্রুপে যুক্ত হনচ্যানেলে যুক্ত হন

Share Market Investment Tips In Bengali: আমরা সকলেই জানি শেয়ার বাজার থেকে মোটা টাকা রোজগার করা সম্ভব। শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করে ওয়ারেন বাফেটের পৃথিবীর ধনী ব্যাক্তিদের তালিকায় গিয়েছিলেন। কিন্তূ শেয়ার বাজারে যেমন উচ্চ রিটার্ন পাওয়াযায়, তেমনি এতে ঝুঁকিও থাকে। আপনি যদি ভুল শেয়ারে বিনিয়োগ করেন তাহলে ক্ষতিগ্রস্ত হতেও পারেন। তাই ক্ষতির হাত থেকে বাঁচার জন্য শেয়ার বাজারে কি নিয়োগ করার ৭টি সূত্র সম্বন্ধে জানবো, যেগুলি শেয়ার বাজারের বিশেষজ্ঞরাও মেনে চলেন। এই ৭টি নিয়ম অনুসরণ করে আপনি যদি শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করেন তাহলে লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটা বেড়ে যাবে।

শেয়ার মার্কেটে বিনিয়োগের ৭টি নিয়ম (Share Market Investment Tips)

শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করার মূল কারণ হলো নিজের সম্পদ বৃদ্ধি করা। এখান থেকে যেমন ভালো রিটার্ন পাওয়া যায় তেমনি ঝুঁকিও থাকে। আপনি যদি শেয়ার বাজার থেকে বিনিয়োগ করতে চান তাহলে ভালো কোম্পানির শেয়ার নির্বাচন করতে হবে এবং সব সময় সতর্ক থাকতে হবে। নিচে এমন ৭টি নিয়ম রয়েছে যেগুলি অনুসরণ করে আপনি বিনিয়োগকারী হিসেবে একজন সফল ব্যাক্তি হতে পারবেন। 

আরও পড়ুন: Share Market – টেকনিক্যাল এনালাইসিস করে ভাল শেয়ার কেনার কৌশল, শেয়ার বাজারে থেকে ধনী হতে সাহায্য করবে

1. অনেক কিছু শিখুন ও পড়ুন

শেয়ার বাজার ক্রমাগত পরিবর্তিত এবং বিকশিত হচ্ছে, এবং তাই আপনার কাছে নতুন তথ্য বা জ্ঞান থাকা প্রয়োজন। অতএব, আপনার সর্বদা বাজার, কোম্পানি, শিল্প, প্রবণতা এবং কৌশলগুলি সম্পর্কে শেখা এবং পড়া উচিত যা আপনাকে আপনার লক্ষ্য অর্জনে সহায়তা করতে পারে। আপনি তথ্যের বিভিন্ন উত্স ব্যবহার করতে পারেন, যেমন বই, নিবন্ধ, পডকাস্ট, কোর্স, নিউজলেটার, প্রতিবেদন এবং আরও অনেক কিছু। শুধুমাত্র পড়লেই বা তথ্য জানলেই হলোনা, সেগুলি আসন কিনা যাচাই করে দেখতে হবে।

2. আপনার মালিকানা জানুন

আপনি কোন শেয়ারে বিনিয়োগ করার আগে, আপনি কি কিনছেন এবং কেন করছেন তা জেনে নেওয়া উচিত। আপনার ব্যবসার মডেল, প্রতিযোগিতামূলক সুবিধা, আর্থিক কর্মক্ষমতা, বৃদ্ধির সম্ভাবনা, ঝুঁকি এবং কোম্পানির মূল্যায়ন বোঝা উচিত। ভবিষ্যতে শেয়ারের দাম বাড়তে বা কমতে আশা করার কারণও থাকতে হবে। এটি আপনাকে শেয়ারগুলিতে বিনিয়োগ এড়াতে সাহায্য করবে যা আপনি বোঝেন না, বা যা আপনার উদ্দেশ্য এবং ঝুঁকি সহনশীলতার সাথে মেলে না।

আরও পড়ুন: IPO – শেয়ার বাজারের IPO কী? এতে অল্প সময়েই টাকা ডবল হয়ে কিভাবে? জেনেনিন বিনিয়োগ করার পদ্ধতি।

3. দীর্ঘমেয়াদীর জন্য, ছোট স্টক কিনুন

শেয়ার বাজারে উচ্চতর রিটার্ন অর্জনের একটি উপায় হল স্মল-ক্যাপ স্টক বা যার বাজার মূলধন তুলনামূলকভাবে কম সেইসব কোম্পানির স্টকগুলিতে বিনিয়োগ করা। এই স্টকগুলির আরও বৃদ্ধির সম্ভাবনা থাকে, কারণ তারা তাদের বাজারের শেয়ার প্রসারিত করতে পারে, তাদের পণ্য বা পরিষেবাগুলি উদ্ভাবন করতে পারে বা নতুন বাজারে প্রবেশ করতে পারে। তারা বাজার দ্বারা অবমূল্যায়িত বা উপেক্ষা করার প্রবণতাও রাখে, যা দর কষাকষির জন্য সুযোগ তৈরি করে। যাইহোক, ছোট-ক্যাপ স্টকগুলি আরও অস্থির এবং ঝুঁকিপূর্ণ হতে থাকে, কারণ তারা বাজারের ওঠানামা, প্রতিযোগিতা, নিয়ন্ত্রণ এবং অন্যান্য কারণগুলির প্রতি আরও সংবেদনশীল। অতএব, আপনার কেবলমাত্র ছোট-ক্যাপ স্টকগুলিতে বিনিয়োগ করা উচিত যদি আপনার দীর্ঘমেয়াদী দিগন্ত থাকে এবং আপনি উচ্চতর ঝুঁকি গ্রহণ করতে ইচ্ছুক হন। 

4. আপনি যতটা অবগত থাকতে পারেন তার চেয়ে বেশি স্টক রাখুন না

শেয়ার বাজারে বিনিয়োগের আরেকটি নিয়ম হল আপনার পোর্টফোলিওতে থাকা স্টকের সংখ্যা সীমিত করা।  এর কারণ হল আপনার যত বেশি স্টক রয়েছে, তাদের ট্র্যাক রাখা এবং তাদের কার্যকারিতা নিরীক্ষণ করা তত কঠিন।  আপনি হয়ত আপনার রিটার্ন কমিয়ে দিতে পারেন, কারণ আপনি অনেক স্টক জুড়ে আপনার টাকা খুব পাতলা করে ফেলেছেন।  একটি ভাল নিয়ম হল আপনার পোর্টফোলিওতে 10 থেকে 15টির বেশি স্টক না রাখা এবং আপনার বিনিয়োগের পরিমাণের চেয়ে গুণমানের দিকে মনোনিবেশ করা।  আপনার পোর্টফোলিও নিয়মিত পর্যালোচনা করা উচিত, এবং আপনার মানদণ্ড বা প্রত্যাশা পূরণ করে না এমন কোনো স্টক বিক্রি বা প্রতিস্থাপন করা উচিত।

আরও পড়ুন: Options Trading – সহজ বাংলা ভাষায় অপশন ট্রেডিং বুঝুন, মোটা টাকা আয় করার একটি রাস্তা।

5. আপনি যদি পণ্যটি পছন্দ করেন তবে সম্ভাবনা রয়েছে যে আপনি স্টকটি পছন্দ করবেন

শেয়ার বাজারে ভালো বিনিয়োগের সুযোগ খোঁজার আরেকটি উপায় হল আপনি আপনার দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহার করেন বা পছন্দ করেন এমন পণ্য বা পরিষেবার দিকে নজর দেওয়া।  সম্ভাবনা হল, আপনি যদি কোনো কোম্পানির একজন সন্তুষ্ট গ্রাহক হন, তাহলে আপনি সেই কোম্পানির একজন সুখী শেয়ারহোল্ডারও হবেন।  এর কারণ হল যে কোম্পানিগুলির অনুগত এবং ক্রমবর্ধমান গ্রাহক বেস রয়েছে তাদের শক্তিশালী এবং টেকসই প্রতিযোগিতামূলক সুবিধা রয়েছে, যা উচ্চ রাজস্ব, লাভ এবং শেয়ারের দামে অনুবাদ করে।  যাইহোক, আপনার বিনিয়োগের সিদ্ধান্তগুলি শুধুমাত্র আপনার ব্যক্তিগত পছন্দ বা মতামতের উপর ভিত্তি করে করা উচিত নয়।  আপনার গবেষণা এবং বিশ্লেষণও করা উচিত এবং নিশ্চিত করুন যে কোম্পানির শক্ত মৌলিক, আকর্ষণীয় মূল্যায়ন এবং অনুকূল সম্ভাবনা রয়েছে।

আরও পড়ুন: Stock Market Tips – শেয়ার বাজারে টাকা বিনিয়োগ করেন? মেনে চলুন এই 5 টি টিপস! বিনিয়োগ করার আগে অবশ্যই জেনেনিন।

6. বাজার সময় করার চেষ্টা করবেন না

শেয়ার বাজারে বিনিয়োগকারীরা যে সবচেয়ে সাধারণ ভুলগুলি করে থাকে তা হল বাজারের সময় নির্ধারণের চেষ্টা করা বা বাজারের গতিবিধির পূর্বাভাসের উপর ভিত্তি করে শেয়ার কেনা বেচা করা।  এটি একটি ঝুঁকিপূর্ণ এবং নিরর্থক কৌশল, কারণ বাজারটি অপ্রত্যাশিত এবং অনেকগুলি কারণ দ্বারা প্রভাবিত যা আপনার নিয়ন্ত্রণের বাইরে।  আপনি শেষ পর্যন্ত উচ্চ ক্রয় এবং কম বিক্রি করতে পারেন, অথবা সেরা সুযোগগুলি হাতছাড়া করতে পারেন।  বাজারকে সময় দেওয়ার চেষ্টা করার পরিবর্তে, আপনার উচিত একটি ক্রয় এবং ধরে রাখার কৌশল অবলম্বন করা, বা যুক্তিসঙ্গত দামে ভাল কোম্পানির শেয়ার কেনা এবং দীর্ঘমেয়াদে ধরে রাখা।  এইভাবে, আপনি চক্রবৃদ্ধির শক্তি থেকে উপকৃত হতে পারেন এবং ঘন ঘন ট্রেডিং এর খরচ এবং চাপ এড়াতে পারেন।

আরও পড়ুন: মিউচুয়াল ফান্ড এবং শেয়ার বাজার কোনটিতে বিনিয়োগে বেশি লাভ?

7. বিনামূল্যে নগদ প্রবাহ রাজা হয়

শেয়ার বাজারে বিনিয়োগের শেষ নিয়ম হল আপনি যে কোম্পানিগুলিতে বিনিয়োগ করেন তাদের বিনামূল্যে নগদ প্রবাহের দিকে মনোযোগ দেওয়া। বিনামূল্যে নগদ প্রবাহ হল প্রয়োজনীয় মূলধন ব্যয় বাদ দিয়ে একটি কোম্পানি তার কার্যক্রম থেকে যে পরিমাণ নগদ উৎপন্ন করে।  বজায় রাখা বা তার ব্যবসা প্রসারিত.  বিনামূল্যে নগদ প্রবাহ হল একটি কোম্পানির আর্থিক স্বাস্থ্য এবং লাভের মূল সূচক, কারণ এটি দেখায় যে কোম্পানি তার শেয়ারহোল্ডারদের পুরস্কৃত করার জন্য কত নগদ রেখে গেছে, হয় লভ্যাংশ প্রদান করে বা শেয়ার কেনার মাধ্যমে।  বিনামূল্যে নগদ প্রবাহ উপার্জন বা রাজস্বের চেয়েও একটি নির্ভরযোগ্য পরিমাপ, কারণ এটি অ্যাকাউন্টিং ম্যানিপুলেশন বা বিকৃতির কম বিষয়।  অতএব, আপনার উচিত এমন কোম্পানিগুলির সন্ধান করা যেগুলির ইতিবাচক এবং ক্রমবর্ধমান বিনামূল্যে নগদ প্রবাহ রয়েছে, কারণ তাদের শেয়ার বাজারে উচ্চতর এবং আরও টেকসই রিটার্ন পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

আরও পড়ুন: Penny Stock – পেনি স্টক কি? জানুন এর আসল সত্য! বিনিয়োগ করা কি উচিত দেখে নিন বিস্তারিত।

উপসংহার

নিজের সম্পদ বৃদ্ধি করার জন্য শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করা একটি ভালো বিকল্প। কিন্তূ এতে আপনি ঝুঁকির সম্মুখীন হতে পারেন, যা এড়াতে আপনার যথেষ্ট জ্ঞান থাকা প্রয়োজন। এই ৭টি নিয়ম অনুসরণ করে, আপনি আপনার সাফল্যের সম্ভাবনা আরও বাড়াতে পারেন এবং বিনিয়োগকারীদের মুখোমুখি হওয়া কিছু সাধারণ সমস্যাগুলি এড়াতে পারেন।  মনে রাখবেন, শেয়ার বাজার একটি দ্রুত ধনী হওয়ার স্কিম নয়, বরং একটি দীর্ঘমেয়াদী যাত্রা যার জন্য ধৈর্য, ​​শৃঙ্খলা এবং জ্ঞানের প্রয়োজন।

এই ধরনের অর্থনীতি সম্পর্কিত তথ্য সহজ বাংলা ভাষায় পেতে আমাদের যুক্ত থাকুন 👇

আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপJoin Us
আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ চ্যানেলFollow Us
আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলJoin Us
আমাদের ফেসবুক পেজFollow Us
Google নিউজে ফলো করুনFollow Us

5 thoughts on “Share Market: শেয়ার মার্কেটে বিনিয়োগের এই ৭টি নিয়ম মেনে চললেই মালামাল! জেনে থাকা আবশ্যক”

Leave a Comment