শেয়ার বাজার মিউচুয়াল ফান্ড পোস্ট অফিস স্কিম ব্যাঙ্ক স্কিম ক্রেডিট কার্ড ডিমেট অ্যাকাউন্ট ইন্সুরেন্স FD ক্যালকুলেটর

সরকারি এই ব্যাংকের গ্রাহকদের একাউন্টে ঢুকছে 820 কোটি টাকা! ব্যাংকের এমন ক্রিয়া-কলাপের কারণ কি?

Photo of author

By Anjan Mahata

গ্রুপে যুক্ত হনচ্যানেলে যুক্ত হন

বর্তমানে ভারতবর্ষে মোট ১২ টি রাষ্ট্রায়ত্ত সরকারি ব্যাংক রয়েছে। এই ব্যাংকগুলির মধ্যে অন্যতম জনপ্রিয় একটি ব্যাংক হল ইউকো ব্যাংক (UCO Bank)। এই ব্যাংকটি পশ্চিমবঙ্গ তথা পুরো ভারত জুড়ে খুবই জনপ্রিয়। ইউকো ব্যাংক দ্বারা প্রকাশিত একটি রিপোর্ট অনুযায়ী গ্রাহকদের একাউন্টে মোট ৮২০ কোটি টাকা ঢুকেছে। কিন্তু আসলে কি সত্যিই ইউকো ব্যাংক তার গ্রাহকদের একাউন্টে টাকা দেওয়ার জন্য ৮২০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে? নাকি ভুল করে গ্রাহকদের একাউন্টে টাকা ঢুকছে? বিস্তারিত জানতে আজকের এই প্রতিবেদনটি সম্পূর্ণ পড়ুন।

সম্প্রতি ইউকো ব্যাংকের তরফ থেকে জানানো হয়েছে ভুল করে প্রচুর গ্রাহকদের একাউন্টে টাকা ঢুকছে এ পর্যন্ত মোট ৮২০ কোটি টাকা গ্রাহকদের একাউন্টে অলরেডি জমা পড়ে গিয়েছে। ব্যাংকের তরফ থেকে জানানো হয়েছে ইমিডিয়েট পেমেন্ট সিস্টেম (IMPS) এই ত্রুটি থাকার কারণেই এই সমস্যা দেখা দিয়েছে। যেহেতু ব্যাংকটি কলকাতা ভিত্তিক তাই ব্যাংক কলকাতা পুলিশে এফআইআর (FIR) জানিয়েছেন।

ইমিডিয়েট পেমেন্ট সিস্টেম ব্যবস্থা কি?

ইমিডিয়েট পেমেন্ট সিস্টেম ব্যবস্থার মাধ্যমে এক ব্যাংক থেকে অন্য ব্যাংকে অনলাইনে টাকা লেনদেন করা হয়। IMPS ব্যবস্থার মাধ্যমে প্রত্যেকদিন সর্বোচ্চ 5 লক্ষ টাকা পর্যন্ত টাকা লেনদেন করা সম্ভব। এই পদ্ধতিতে নিমেষের মধ্যে একজনের একাউন্ট থেকে অন্যজনের একাউন্টে টাকা ট্রান্সফার হয়ে যায়। এই পেমেন্ট সিস্টেমের মাধ্যমে টাকা লেনদেন করলে ৫ টাকা থেকে ১৫ টাকা পর্যন্ত ট্রানজেকশন চার্জ হিসেবে কাটা হয়।

মিস করবেন না » Post Office Scheme: প্রতিমাসে ৯,০০০ টাকার বেশি আয় করতে পারবেন পোস্ট অফিসের এই দুর্দান্ত স্কিমে, জেনেনিন বিস্তারিত তথ্য

কিভাবে গ্রাহকদের একাউন্টে ঢুকছে ৮২০ কোটি টাকা?

সম্প্রতি ইউকো ব্যাংক জানিয়েছে ভুলবশত ব্যাংকের গ্রাহকদের একাউন্টে মোট ৮২০ কোটি টাকা জমা পড়ে গিয়েছে। এছাড়াও ইউকো ব্যাংক এটাও জানিয়েছেন এর মধ্যে ৬৪৯ কোটি টাকা ব্যাংকের কোষাগারে ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে। এখনো ইউকো ব্যাংক গ্রাহকদের একাউন্টে পড়ে রয়েছে প্রায় ১৭১ কোটি টাকা। অর্থাৎ মোট টাকার ৭৯ শতাংশ ব্যাংকের কাছে ফিরে এসেছে। বর্তমানে ইউকো ব্যাংক ইমিডিয়েট পেমেন্ট সিস্টেম বন্ধ রেখেছে। ইউকো ব্যাংকের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, যদি অন্য কোন ব্যাংকের গ্রাহক ইউকো ব্যাংকের গ্রাহকদের টাকা পাঠাচ্ছে তাহলে যাকে টাকা পাঠাচ্ছে তার ব্যাংকে টাকা তো ঢুকছেই এবং যে পাঠাচ্ছে তার অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা কেটে নেওয়া হলেও পরবর্তীতে আরও সেই টাকা সেই ব্যক্তির একাউন্টে ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। অর্থাৎ একই সঙ্গে দুজনের একাউন্টেই টাকা ঢুকছে।

অবশ্যই পড়ুন » Compounding Power: প্রতিদিন 100 টাকা জমা করে কোটিপতি! গণিতের এই হিসাব জানলে আপনিও হবেন কোটিপতি।

ব্যাংকের এই সমস্যা ১০ই নভেম্বর থেকে ১৩ই নভেম্বরের মধ্যে প্রবলভাবে দেখা দিয়েছিল। যার ফলে ইউকো ব্যাংক ইমিডিয়েট পেমেন্ট সিস্টেমকে বন্ধ রেখেছিল। সম্প্রতি ইউকো ব্যাংকের তরফ থেকে জানানো হয়েছে যত শীঘ্র সম্ভব তারা এই সমস্যার সমাধান করে ফেলবে এবং তারা এই বিষয়টি পুলিশকেও জানিয়েছেন তাই তারাও এই বিষয়টি নিয়ে নতুন পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

এই ধরনের অর্থনীতি সম্পর্কিত তথ্য সহজ বাংলা ভাষায় পেতে আমাদের যুক্ত থাকুন 👇

আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপJoin Us
আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ চ্যানেলFollow Us
আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলJoin Us
আমাদের ফেসবুক পেজFollow Us
Google নিউজে ফলো করুনFollow Us

Leave a Comment