শেয়ার বাজার মিউচুয়াল ফান্ড পোস্ট অফিস স্কিম ব্যাঙ্ক স্কিম ক্রেডিট কার্ড ডিমেট অ্যাকাউন্ট ইন্সুরেন্স সমস্ত FD ক্যালকুলেটর

Gold Investment: আপনি কি সোনায় বিনিয়োগ করতে চান? ২২ ক্যারেট নাকি ২৪ ক্যারেট কোন সোনায় বেশি রিটার্ন পাবেন।

Photo of author

By Anjan Mahata

গ্রুপে যুক্ত হনচ্যানেলে যুক্ত হন

Gold Investment 22 carat vs 24 carat: সোনার গয়না পছন্দ করেন না এখন মানুষ প্রায় নেই বললেই চলে। তবে বর্তমান সময়ে সোনা শুধু অলংকার হিসেবেই নয়, বিনিয়োগের একটি ভালো মাধ্যম হিসেবে ব্যবহৃত হয়। দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগের ক্ষেত্রে তাই বর্তমানে সোনার গুরুত্ব অপরিসীম। তবে আজকাল সোনার দামে নাভিশ্বাস হতে হচ্ছে মধ্যবিত্ত মানুষকে। কারণ সোনার দাম বর্তমানে ক্রমশই ঊর্ধ্বমুখী। বর্তমানে ২৪ ক্যারেট সোনার ১০ গ্রামের দাম ৭৩৪২০ টাকা। তবে দাম বাড়লেও সোনার ঐতিহ্য ও গুরুত্বে আঁচ পারেনি এতটুকুও। তাই প্রাচীন কাল থেকে আজও পর্যন্ত সামাজিক সোনার গুরুত্ব অটুট।

বাজারে ২২ ক্যারেট, ২৪ ক্যারেট ইত্যাদি অনেক ধরনের সোনা কিনতে পাওয়া যায়। তবে অনেকেই জানেন না ক্যারেট শব্দটি আসলে সোনা ক্রয় বিক্রয়ের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত। কিন্তু আপনি কি জানেন বাজারে প্রচলিত ২২ ক্যারেট, ২৪ ক্যারেট ইত্যাদি সোনা গুলির মধ্যে কোনটি আপনার জন্য সবথেকে উপযোগী? কোন সোনার ক্ষেত্রে বিনিয়োগ করলে ভবিষ্যতে লাভবান হওয়ার সম্ভাবনার প্রবল? সোনার ক্ষেত্রে বিনিয়োগের আগে এই সমস্ত তথ্য গুলি জেনে নিন এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে।

খাঁটি সোনা কি?

বর্তমানে ২৪ ক্যারেট সোনাকে খাঁটি সোনা হিসাবে চিহ্নিত করা হয়। অর্থাৎ এই সোনার মধ্যে খাদ এর পরিমাণ প্রায় নেই বললেই চলে। এর মধ্যে ৯৯.৯ শতাংশ সোনা রয়েছে। সোনার পরিমাপ নির্ধারণ করা হয় ক্যারেট পদ্ধতির সাহায্যে। ক্যারেট কথাকে প্রকাশ করা হয় ‘কে’ এর সাহায্যে। একটি সোনার গয়না বা অন্য কোনো সোনার জিনিসে কতটা পরিমাণ খাঁটি সোনা যোগ করা হয়েছে সেই পরিমাণকে ক্যারেট বলা হয়।

ক্যারেটের পরিমাণ

কোনো সোনা যত খাঁটি হবে সেই সোনার ক্যারেটের পরিমাণ তত বেশি হয়। সাধারণত বাজারে ১৪, ১৮, ২২ ও ২৪ ক্য্যারেটের সোনা পাওয়া যায়। এর শক্তি এবং স্থিতিস্থাপকতার জন্য এর সঙ্গে তামা বা রুপোর মতো ধাতু যুক্ত করা হয়।

জেনে রাখুন » Gold Investment: সোনা কিনলে ব্যাঙ্কের FD-র থেকে দ্রুত টাকা বাড়বে! ১ বছরের মুনাফা শুনলে চমকে উঠবেন

সোনার বিশুদ্ধতা চিহ্নিত করার উপায়

বাজারে যত ক্যারেট সোনা পাওয়া যাক না কেন, সেগুলিকে দেখে তার বিশুদ্ধতা চিহ্নিত করা কখনোই সম্ভব নয়। কারণ প্রতি ক্যারেটের সোনাকেই বাইরে থেকে দেখতে এক রকম হয়। তাই সাধারণ মানুষের বোঝার জন্য BIS সোনাকে হলমার্ক করে তার গুণমান নির্ধারণ করে। সোনা কেনার সময় সব সময় তার হলমার্ক দেখে এবং তার বিশুদ্ধতার সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে তবেই কেনা উচিত।

  • এটি ১০০% খাঁটি সোনা অর্থাৎ এর সঙ্গে অন্য কোন ধরনের ধাতু খাদ হিসেবে মেশানো হয়নি। উজ্জ্বল হলুদ বর্ণের ২৪ ক্যাডেট সোনাকে বাজারে ৯৯.৯% খাঁটি বলে বিক্রি করা হয়। এর দাম স্বাভাবিক ভাবেই ১৮ বা ২২ ক্যারেট সোনার থেকে বেশি। তবে এটি নরম ও নমনীয় হওয়ার কারণে গয়না তৈরির কাজে ব্যবহৃত হয় না। বার এবং কয়েন তৈরিতে, ইলেকট্রনিক্স, চিকিৎসা সরঞ্জাম তৈরিতে এই সোনা ব্যবহার করা হয়।
  • বর্তমানে এই সোনা দিয়েই বেশিরভাগ গয়না তৈরি করা হয়। এটি ৯১.৬৭ শতাংশ খাঁটি। এই সোনাকে আরো শক্ত ও মজবুত করে তোলার জন্য রুপো, নিকেল, দস্তা এবং অন্যান্য সংকর ধাতু মেশানো হয় এর সঙ্গে।

কোন সোনায় বিনিয়োগ করা অধিক লাভজনক?

বিনিয়োগের অপশন হিসেবে ২৪ ক্যারেট এবং ২২ ক্যারেট দুটি সোনাকেই বেছে নেওয়া অত্যন্ত লাভজনক। তবে ২৪ ক্যারেট সোনার দাম সময়ের সাপেক্ষে ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই শুধুমাত্র বিনিয়োগের জন্য ২৪ ক্যারেট সোনা অত্যন্ত ভালো একটি অপশন।তবে সোনার গয়নার ক্ষেত্রে বিনিয়োগ করতে গেলে ২২ ক্যারেট সোনাকে বেছে নেওয়া ভালো। কারণ এটি নিকেল, তামা এবং রুপো মিশিয়ে তৈরি করা হয়, যা গয়নাকে আরো টেকসই করে।

অবশ্যই পড়ুন » Gold Investment: আগামী ২০৩০ সালে সোনার দাম হবে আকাশছোঁয়া! বিশেষজ্ঞরা কি পরামর্শ দিচ্ছেন দেখে নিন।

এই ধরনের অর্থনীতি সম্পর্কিত তথ্য সহজ বাংলা ভাষায় পেতে আমাদের যুক্ত থাকুন 👇

আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপJoin Us
আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ চ্যানেলFollow Us
আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলJoin Us
আমাদের ফেসবুক পেজFollow Us
Google নিউজে ফলো করুনFollow Us