শেয়ার বাজার মিউচুয়াল ফান্ড পোস্ট অফিস স্কিম ব্যাঙ্ক স্কিম ক্রেডিট কার্ড ডিমেট অ্যাকাউন্ট ইন্সুরেন্স সমস্ত FD ক্যালকুলেটর

Electric Bil Payment: ইলেকট্রিক বিল জমা করার সময় এই ভুল করবেন না! নইলে পড়তে হবে বিরাট সমস্যায়।

Photo of author

By Anjan Mahata

গ্রুপে যুক্ত হনচ্যানেলে যুক্ত হন

Electric Bil Payment Fraud Be aware: প্রতি মাসের শুরুতেই সাধারণ মানুষকে যে সমস্ত কাজ গুলি সেরে ফেলতে হয় তার মধ্যে অন্যতম একটি হলো ইলেকট্রিক বিল দেওয়া। ইলেকট্রিক বিল দেওয়ার ক্ষেত্রে কোন ভুল হয়ে গেলে বা নির্দিষ্ট তারিখের পরে ইলেকট্রিক বিল দিলে তার ফলে গ্রাহককে নানা ধরনের অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয়। সামান্য কিছু ভুল ত্রুটির জন্য আবার গ্রাহকের বাড়িটিও ইলেকট্রিক সংযোগ বিচ্ছিন্ন হতে পারে। আর বর্তমানে আমাদের জীবন ইলেকট্রিক পরিষেবার সঙ্গে গভীর ভাবে সম্পর্কযুক্ত। তাই সম্প্রতি ঘটে যাওয়া একটি ঘটনা আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয় যে ইলেকট্রিক বিল দেওয়ার ব্যাপারে অত্যন্ত সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত।

কিভাবে ইলেকট্রিক বিল জমা করার সময় প্রতারনা করা হয়

সম্প্রতি ইলেকট্রিক বিল সম্পর্কিত এমন একটি ঘটনা ঘটেছে কুলটিতে, যে ঘটনা থেকে শিক্ষা নিয়ে আমাদের প্রত্যেকের অত্যন্ত সতর্ক থাকা উচিত। জানা যাচ্ছে কুলটিতে কয়েকজনের গ্রাহক তাদের ইলেকট্রিক বিল জমা করেছিলেন বিদ্যুৎ দপ্তরের কর্মীদের হাতেই। সাধারণত ইলেকট্রিক বিল মিটিয়ে দেওয়ার পর বিদ্যুৎ দপ্তরের তরফ থেকে বিল পেমেন্টের একটি রশিদ দেওয়া হয়। কিন্তু ওই কয়েকজন উপভোক্তা বিদ্যুতের বিল জমা দেওয়ার পরেও বেশ কিছু অজুহাত দেখিয়ে তাদেরকে রশিদ দেওয়া হয়নি।

রশিদের বদলে তাদের হাতে লিখে দেওয়া হয়েছিল। তবে তারা যে ইলেকট্রিক বিল মিটিয়ে দিয়েছেন এমন কোন ম্যাসেজ তাদের ফোনে আসেনি। তা সত্ত্বেও তারা নিশ্চিন্তে ছিলেন এই ভেবে যে তারা বিদ্যুৎ দপ্তরের কর্মীদের হাতেই বিদ্যুতের বিল এর টাকা দিয়েছেন। কিন্তু কিছুদিনের মধ্যেই বটে অন্য বিভ্রান্ত। বিদ্যু পাথরের কর্মীরা ঐ উপভোক্তাদের বাড়িতে আসেন বৈদ্যুতিক সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার জন্য। এরপরই জানা যায় আসল সত্য ঘটনা। গ্রাহকরা কুলটির নিয়ামতপুর বিদ্যুৎ কেন্দ্রে তাদের ইলেকট্রিক বিল প্রদান করেছিলেন বলে জানা যায়। অনেক উপভোক্তা অভিযোগ করেন ওই অঞ্চলের বিদ্যুৎ দফতরের কর্মী সুব্রত চ্যাটার্জী এবং দেবাশীষ মাঝির হাতে তারা বিলের টাকা দিয়েছিলেন।

বিদ্যুৎ বিল জমা করার সময় সতর্কতা অবলম্বন

জানা যায় বিদ্যুৎ দপ্তরের ওই কর্মীরা গ্রাহকের কাছ থেকে বিদ্যুৎ বিলের টাকা নিলেও আসলে তা বিদ্যুৎ দপ্তরের কাছে জমা করেননি। এই ঘটনার সত্যতা প্রকাশে আসতেই উত্তেজিত জনতা বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। যদিও অভিযুক্ত দুই কর্মীকে সেখানে দেখতে পাওয়া যায়নি। ফলে জনতার ক্ষোভ আরো বেড়ে যায়। ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছান নিয়ামতপুর ফাঁড়ির পুলিশ। এই ঘটনার তদন্তের ভার নিয়েছে পুলিশ। তবে এই ঘটনাই আমাদের শিক্ষা দেয় বিদ্যুৎ বিলের ক্ষেত্রে প্রতিটি গ্রাহকেরই বিশেষ সর্তকতা অবলম্বন করা উচিত এবং বিল প্রদান করার পর অবশ্যই রশিদ গ্রহণ করা উচিত।

অবশ্যই পড়ুন » Electricity Bills: উচ্চ বিদ্যুৎ বিলের সমস্যা? এই ৫টি উপায়ে আপনি বিদ্যুৎ বিল কম করতে পারবেন

এই ধরনের অর্থনীতি সম্পর্কিত তথ্য সহজ বাংলা ভাষায় পেতে আমাদের সঙ্গে যুক্ত থাকুন 👇

আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপJoin Us
আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ চ্যানেলFollow Us
আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলJoin Us
আমাদের ফেসবুক পেজFollow Us
Google নিউজে ফলো করুনFollow Us